গাছের গুড়ি বাশ ফেলে রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করবেন না: অাফরোজা অাক্তার রিবা

273

খবর৩২: করোনা ভাইরাস সংক্রমনের মধ্যে অারেক সমস্যা দেখা দিয়েছে সাধারণ মানুষের মাঝে। করোনাভাইরাস সংক্রমন রোধে গ্রামে গ্রামে বাশ কাঠ দিয়ে লকডাউন করা হচ্ছে। লক ডাউন! নাকি সাধারণ মানুষকে নতুন করে ভোগান্তিতে ফেলার প্রক্রিয়া?

দোহারে কয়েক দিন ধরে লক্ষ করা যাচ্ছে এলাকাবাসী ও যুব সমাজের উদ্যোগে দোহারের বিভিন্ন এলাকায় যেমন বাশ কাঠ দিয়ে রাস্তা অাটকিয়ে রাখছেন। এতে করে সাধারণ মানুষ পরেছে ভোগান্তিতে।

এসব কিছু জানিয়েছেন উপজেলার বিভিন্ন এলাকার সচেতন মানুষরা। তারা যেমনটা জানিয়েছিলেন যে এভাবে রাস্তা অাটকানো যাবে না। একটা রোগী থাকতে পারে। জরুরী কাজের জন্য মানুষ বাইরে যেতে পারে এরকমটা যদি হয় তাহলে সাধারণ মানুষ অারো বেশী বিপদে পরবে।

(৯ এপ্রিল) বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা বেজে ২০ মিনিট উপজেলার দোহার সরকারী মাঠ সামনে দেখা যায় বাশ দিয়ে রাস্তা অাটকানো হয়েছে। কয়েকজনকে দেখা যাচ্ছে হাট বাজার মাথাই করে মাঠ থেকে প্রায় দুই কিলোমিটার দুরে হেটে যাচ্ছে বাড়ি। কয়েকজন রেগে যেতে চাইলেন এটা হয় না। এখন অারো বেশী বিপদে পরবে সাধারণ মানুষ।

কয়েকজন রিকশাচালকের সাথে কথা বলে জানা যায়, তারা এমনটা জানিয়েছেন যে ভাই অামরা বরিশাল, রংপুর, জামালপুর থেকে অাসছি। সরকারি বেসরকারি কোন খাদ্য সামগ্রী পাই নাই। ঘর বন্ধী থেকে জমানো টাকা সব খেয়ে ফেলছি। রিকশা নিয়ে বের না হলে খাবো কি। তার মধ্যে যদি এলাকায় এলাকায় রাস্তা অাটকিয়ে দেয় তাহলে না খেয়ে মরে যাব ভাই।

উপজেলার কয়েকজন পথচারীর সাথে কথা বলে জানা যায়, সরকারি দিক নির্দেশনা মেনে চলা ভাল। বেশী অতি উৎসাহী হয়ে যেন বেশী কিছু না করি। তাতে হিতে বিপরিত হবে। সংঘর্শ বা মারামারি লেগে যেতে পারে।

দোহার থানা ওসি সাজ্জাদ হোসেন বলেন, “বাশ দিয়ে রাস্তা অাটকিয়ে লক ডাউন করতে হবে এমন কোন দিক নির্দেশনা সরকারি ভাবে দেওয়া হয় নাই।

দোহারবাসীর সুবিধার্থে এলাকাবাসীর ভোগান্তি কমাতে দোহার উপজেলা নির্বাহী অফিসার অাফরোজা অাক্তার রিবা সাথে কথা বলে জানা যায় তিনি বলেন। লকডাউন করার নামে জনদূর্ভোগ সৃষ্টি করবেন না। প্রয়োজনে চেক পোস্ট করুন। জরুরি সেবা যেন বিঘ্ন না হয়। যান চলাচল সীমিত করুন, বিনা প্রয়োজনে কেউ যেন বাড়ি থেকে বের না হই। সে ধরনের সচেতনতা মূলক পদক্ষেপ নিতে পারেন, কিন্তু গাছের গুড়ি বাশ ফেলে রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করবেন না। যারা করছেন অপসারন করেন দ্রুত। জানিয়েছেন দোহার উপজেলা প্রশাসনের নির্বাহী অফিসার অাফরোজা অাক্তার রিবা।