ঢাকার দোহার-নবাবগঞ্জ ভয়ংকর রূপ নিচ্ছে করোনা

4843

মোস্তফা কদ্দুস : ঢাকার দোহার-নবাবগঞ্জ ভয়ংকর রূপ নিচ্ছে করোনা। দুই জনের মৃত্যু? বাড়িতে বাড়িতে বেড়ে চলছে লাল নিশানা। ১৩ মে বুধবার কয়েক ঘন্টার মধ্যে দোহার নবাবগঞ্জ ৭ জন করোনা ভাইরাস সংক্রমনে আক্রান্ত হন। এর কিছুক্ষন পরে খবর আসে সনাতনধর্মের জয়পাড়া লটাখোলার করোনা রোগী ( ৩৯ বছর) বয়সী নারির মৃত্যু হয়েছে। দোহার উপজেলা প্রশাসনের সহায়তায় জয়পাড়া রতন চত্তর সংলগ্ন শ্মশান ঘাটে ঐ নারির সৎকার করা হয়।

দোহার-নবাবগঞ্জ উপজেলা প্রশাসন ও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা যায়, দোহারের জয়পাড়া লটাখোলায় প্রথম এক নারির করোনাভাইরাস সংক্রমন ধরা পরে। উন্নত চিকিৎসা দেবার জন্য ঢাকার পথে নেওয়ার সময় তার মৃত্যু হয়। মৃত্যুর রেশ শোক আতংক কাটতে না কাটতেই খবর পাওয়া যায় দোহারে আরো পাঁচ জন করোনাভাইরাস সংক্রমনে আক্রান্ত হয়েছেন।

দোহার উপজেলা স্ব্যাস্থ্য কমপ্লেক্সের ইমারজেন্সিতে কাজ করে ১ জন, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পাশে ১ জন , রাইপাড়া পোদ্দার বাড়ি এলাকার ১ জন, ফরিদপুরের নগরকান্দার নারিশা বাজারে সেলুনের কাজ করে ১ জন, নয়াবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের সাথে ১ জন।

এ খবর প্রচার চলতে চলতেই হুটহাট করেই সংবাদ থেকে আবারও খবরে প্রচার হয় নবাবগঞ্জর বান্দুরার এলাকায় আরো একজনের করোনাভাইরাস সংক্রমনে আক্রান্ত। এসব তথ্য নিশ্চিত করে নবাবগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স।

দোহার-নবাবগঞ্জ আজকের ৭ জন করোনাভাইরাস রোগী নিয়ে মোট রোগীর সংখা দাড়ালো ৩৩ জনে। বুধবার ১ জনের মৃত্যু সহ মোট দুই জনের মৃত্যু। দোহারের জয়পাড়া বাজার, মেঘুলা বাজার, ফুলতলা বাজার, কার্তিকপুর বাজার, বাংলা বাজার, নবাবগঞ্জ বাজার, বাগমারা বাজার, বান্দুরা বাজারে  যে ভাবে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি না মেনে মার্কেট গুলোতে চলছে বেঁচাকেনা। এসব বাস্তবতা দেখে বিষয়টিকে আতংক বলে মনে করছেন দোহার নবাবগঞ্জ শুশিল সমাজ সহ সকল স্থরের মানুষ। 

স্যোস্যাল মিডিয়া ফেইসবুকে সচেতন জনগোষ্ঠীর দাবীর সূত্রে জানা যাচ্ছে, তারা চায় দোহার-নবাবগঞ্জ লক ডাউন করা হোক। না হলে কথা শুনানো যাবে না। সবাইকে সচেতন এবং ঘরে থাকার আহবান করা হচ্ছে। কেউ কেউ বলছেন এলাকা ভিত্তিক একটা কমিটি করে হাট বাজার কমিটির সদস্যর মধ্যে কয়েকজনকে দায়ীত্ব দেওয়া হোক। তারা হাট বাজার নিয়ে এলাকার ঘরে ঘরে পৌচ্ছে দেওয়া হোক। তাতে জনগনের চাপ কমবে হাটে বাজারে।

খবর ৩২ এর দোহার-নবাবগঞ্জ প্রতিনিধিরা ঘুরে ঘুরে দেখেছেন কোন রকম সামাজিক দূরত্ব এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার লেশ/ চিহ্ন/ বিন্দু মাত্র দেখা যায়নী। একদম গায় গায় ঘেঁশে মানুষ কেনাকাটা করছে হাটে, বাজারে, মার্কেটে। যেন করোনাভাইরাস নামক মহামারি ও আতংক বলে কিছু নেই পৃথিবীতে। জনসাধারণকে মার্কেটে কেনাকাটায় বিন্দু মাত্র দেখা যায়নী সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার কৌশল। যেন রমজানের ঐ রোজার মধ্যে ঈদের খুসি যাচ্ছে বাজারে বাজারে, মার্কেটে মার্কেটে, শপিং মলে,  শপিং মলে আনন্দ বয়ছে ঈদের কেনা কাটায়।

দোহার থানা অফিসার ইনচার্য সাজ্জাদ হোসেন আগেই বলেছেন, ১০ তারিখের পর আমাদের আরো বেশী সতর্ক থাকতে হবে। সতর্কতার কোন বিকল্প নেই। না হলে আমাদের বিপদ আরো বারবে।

দোহার উপজেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটি মনে করেছেন করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগী যে ভাবে হুহু করে বাড়ছে। বাড়ছে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্য বিধি না মেনে না চলে হাট, বাজার, শপিং মলে মানুষ কেনাঁবেচা করছে তাতে বিপদ আসন্ন। এসব বাস্তবতা দেখে ১৩ মে রাত সারে নয়টায় দোহার উপজেলা প্রশাসনের নির্বাহী অফিসার অাফরোজা অাক্তার রিবা ঘোষনা দিয়েছেন দোকান মালিক/ব্যবসায়ী/ক্রেতা সকলেই সরকারি শর্ত মেনে,  স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন, অন্যথায়  মার্কেট বন্ধ ঘোষণা  হতে পারে। উপজেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটি।

দোহার উপজেলা নির্বাহী অফিসার আফরোজা আক্তার রিবা তার ফেইসবুক আইডিতে জনসাধারণকে সতর্ক করার জন্য কিছু তথ্য প্রচার করছেন পাঠকের জন্য আমরা তা তুলে ধরলাম। সম্মানিত দোহারবাসি আজ দোহারের রোগীর সংখ্যা ৬জন থেকে বেড়ে১৩ জন হল এর মধ্যে ২জন মৃত্যুবরণ করেছে আজকের পর যদি আমরা সচেতন না হই তাহলে আর সময় নেই সরকার ত কাউকে বাধ্য করেনি  মার্কেট খোলা রাখতে কোন ক্রেতাকে ও বাধ্য করেনি তাহলে আমাদের  এই মহামারী পরিস্থিতিতে আরও সচেতন হওয়া বাঞ্জনীয় নয় কি?? আসুন এই ইদে আমদের কেনাকাটা পরিহার করে অসহায় কর্মহীনদের  পাশে  দাড়াই “! মা বোনেরা আমরা  বাড়িতে  অলস সময় না কাটিয়ে মার্কেট এ না এসে বাড়ির আংগিনায় আশেপাশে সবজি চাষ করতে পাড়ি!! ঘরে থাকুন, সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখুন, সাস্থ্যবিধি মেনে পরিস্কার পরিচ্ছন্ন পরিবেশে মসজিদে নামাজ আদায় করুন!!!!

অপর দিকে দোহার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আলমগীর হোসেন তার ফেইসবুকে একটি তথ্য প্রচার করছেন, পরিস্থিতি খারাপের দিকে যাচ্ছে, কত জন করোনায় আক্রান্ত বলা যাবে না, বেশি বেশি পরীক্ষার বিকল্প নাই। ঘরে থাকা নিরাপদ, মানুষের সাথে সামাজিক দুরুত্ব বজায় রেখে চলার জন্য বিশেষ অনুরোধ করছি। আল্লাহ্ আমাদের সহায় হউন (আমিন)

এসব বাস্তবতায় দোহার নবাবগঞ্জবাসীর সতর্ক হওয়ার কোন বিকল্প নেই। সবাই নিজে সচেতন হোন, অন্যকে সচেতন করুন, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন, স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলুন, নিজে ঘরে থাকুন, নিরাপদ থাকুন পরিবারকে নিরাপদ রাখুন। সাবান, সডা দিয়ে বার বার হাত ধূন। এ সব খবরের মাঝে আবার দোহার নবাবগঞ্জে ভাল খবর হল সুস্থ্য হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১০ জন।